স্টেট ইউনিভার্সিটির ‘ঐতিহ্যে রাজশাহী শহর’ শীর্ষক সেমিনার

স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ (এসইউবি)-এর উদ্যোগে ‘ঐতিহ্যে রাজশাহী শহর’ শীর্ষক এক সেমিনার গত ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ রাজশাহী সিটি করপোরেশন (আরসিসি) মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান (লিটন)। এসইউবির উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আনোয়ারুল কবিরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. গোলাম সাব্বির সাত্তার।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক ড. আবুল কাশেমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারের কার্য-অধিবেশনের আলোচনায় অংশ নেন রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (আরডিএ)-এর চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন, বরেন্দ্র রিসার্চ মিউজিয়ামের পরিচালক অধ্যাপক ড. আবদুল মজিদ ও রাজশাহী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (রুয়েট)-এর স্থাপত্য বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আসাদুজ্জামান।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন এসইউবির স্থাপত্য বিভাগের প্রধান ড. সাজিদ বিন দোজা এবং এসইউবির কর্মকাণ্ড উপস্থাপন করেন এসইউবির ক্যারিয়ার ডেভেলপমেন্ট সেন্টারের পরিচালক আবু তাহের খান।

খায়রুজ্জামান লিটন তাঁর প্রধান অতিথির ভাষণে উল্লেখ করেন যে, রাজশাহী শহরকে একটি আধুনিক নান্দ্যনিক মহানগরী হিসেবে গড়ে তোলার সব পরিকল্পনাই আরসিসির রয়েছে। উক্ত পরিকল্পনার আওতায় রাজশাহীর ঐতিহ্যবাহী স্থাপনাসমূহ সংরক্ষণের ব্যবস্থা যেমনি থাকবে, তেমনি থাকবে বিভিন্ন খাল ও জলাশয়সমূহকে সংস্কার করে সেগুলোকে দৃষ্টিনন্দনভাবে গড়ে তোলার কাজও। পদ্মার খনন, ভরাটরোধ এবং সংরক্ষণের মাধ্যমে পদ্মাতীরকে পর্যটক আকর্ষণের উপায় হিসেবে ব্যবহারের চিন্তাও আরসিসির রয়েছে বলে তিনি সেমিনারকে অবহিত করেন।

ড. সাজিদ সাজিদ বিন দোজা তাঁর মূল প্রবন্ধে রাজশাহী শহরের ঐতিহাসিক ও ঐতিহ্যবাহী স্থাপনাসমূহ সংরক্ষণের প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করে জরুরি ভিত্তিতে এর একটি তালিকা প্রণয়নের তাগিদ দেন। এ ব্যাপারে স্টেট ইউনিভার্সিটি রুয়েট এবং রাজশাহী সিটি করপোরেশনের সাথে যৌথভাবে কাজ করতে পারে বলেও সাজিদ বিন দোজা অভিমত ব্যক্ত করেন। দেশের অন্যান্য বড় শহরগুলো নিয়ে কাজ করার তথা গবেষণা পরিচালনার প্রস্তুতিও এসইউবির রয়েছে বলে তিনি তাঁর উপস্থাপনায় উল্লেখ করেন।

এসইউবির উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আনোয়ারুল কবির রাজশাহী শহরের ঐতিহাসিক বিবর্তনের নানা তথ্য তুলে ধরে বলেন, ঐতিহ্য ও আধুনিকতার মধ্যে সমন্বয় সাধনের মাধ্যমেই উন্নয়নের গতিধারাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব এবং সেটাই আমাদের করা প্রয়োজন।

সমগ্র অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন রাজশাহী বেতারের বিশিষ্ট অনুষ্ঠান উপস্থাপিকা রুখসানা আখতার লাকী।